Monday, December 6, 2021
Home কুষ্টিয়ার খবর কুষ্টিয়া সদর উপজেলা ঝুঁকিতে কুষ্টিয়ার শতাধিক বহুতল ভবন ও শপিং মল

ঝুঁকিতে কুষ্টিয়ার শতাধিক বহুতল ভবন ও শপিং মল



ভয়েস অফ কুষ্টিয়া ।। অগ্নি দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে কুষ্টিয়ার শতাধিক বহুতল ভুবন ও শপিং মল এবং মার্কেটে, বৈদ্যুতিক আগুন সাবধানতা অবলম্বনে। ঘন ঘন মহড়া- বাড়ি থেকে বের হওয়ার পথ চিহ্নিত করে রাখার- পরামর্শ দেন দমকল বাহিনীর কর্মীরা।









বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তথ্যমতে , ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে অগ্নি দুর্ঘটনার সংখ্যা ৮৫ হাজারেরও বেশি, যাতে ১৬ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন। তাদের তথ্যমতে অগ্নিকাণ্ডের প্রধান কারণগুলো তিনটি গোলযোগ , চুলা থেকে লাগা আগুন এবং সিগারেটের আগুন। যত অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে তার ৭২ শতাংশই ঘটে এই তিনটি কারণে। কিন্তু এই কারণগুলো এবং তা থেকে বাঁচার উপায় সাধারণ মানুষজন কতটা জানেন? বৈদ্যুতিক গোলযোগ , চুলার আগুন এবং সিগারেটের আগুন।

কুষ্টিয়া দমকল বাহিনীর ফায়ার সার্ভিসে কর্মরত ফায়ার ইন্সপেক্টর আব্দুস সালামের, সাথে গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে কথা হলে- কুষ্টিয়া ফায়ার সার্ভিসের ফায়ার ইন্সপেক্টর মোঃ আব্দুস সালাম’ জানান।”

আবাসিক অগ্নি – দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে থাকা মানুষ জন বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অগ্নিকাণ্ডের ব্যাপারে সবচেয়ে বড় ভুল যেটি করেন তা হল অনেকে রানার পর চুলা জ্বালিয়ে রাখেন- চুলার আশপাশে অনেকেই শুকনো পদার্থ, কাগজ, কাপড় বা অন্যান্য দাহ্য পদার্থ রাখেন। শিশুদের হাতের নাগালে গ্যাসের চুলা ও ম্যাচের কাঠি অনেক সময় বিপদের কারণ হতে পারে। মশার কয়েলও বিপদ ডেকে আনতে পারে বলে সাবধান করেন ফায়ার ইন্সপেক্টর আব্দুস সালাম।

[ঝুঁকিতে কুষ্টিয়ার শতাধিক বহুতল ভবন ও শপিং মল]

মশার কয়েল ব্যাবহারে হয়ত আপনি মশা থেকে বাঁচলেন কিন্তু এটি আবাসিক এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের বড় উৎস। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের বড় কারণ হিসেবে আব্দুস সালাম বলছেন , বিদ্যুতের তার সঠিক ভাবে না নেয়া , অনেক বেশি মাল্টি – প্লাগ ব্যবহার করা , বাডড়র বৈদ্যুতিক ব্যবস্থার ক্ষমতার বাইরে বেশি বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ব্যবহার করা , বৈদ্যুতিক তার বা সরঞ্জামের সাথে পানির সংস্পর্শ। এছাড়া বিদ্যুৎ চলে গেলে মোমবাতি বা লেমফো এবং হারিকেন ব্যবহারও ঝুঁকিপূর্ণ।

সিগারেট খাওয়ার পর তা কোথায় ফেলছেন এব্যাপারে সতর্ক থাকেন না অনেকে। সেটি গ্যাসের লাইনের উপরে পড়তে পারে অথবা শুকনো কাগজ বা পাতার উপর পরে আগুন ধরে যেতে পারে। নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সিগারেট খেতে খেতে ঘুমিয়ে পড়াও বিপদের অন্যতম কারণ। কোন ধরনের আগুন কীভাবে নেভাবেন ? ফায়ার ইন্সপেক্টর আব্দুস সালাম বলছেন , শুষ্ক ও দাহ্য পদার্থ চুলার কাছ থেকে সরিয়ে রাখা অত্যন্ত প্রয়োজন। তিনি বলছেন , শুল্ক বস্তুর আগুন যেমন কাগজ , কাপড় বা গাছের পাতায় আগুন লাগলে নেভানোর সবচেয়ে ভালো উপায় পানি।



দেশের ৭২ শতাংশ অগ্নিকাণ্ড ঘটে বৈদ্যুতিক গোলযোগ , চুলা থেকে এবং সিগারেটের কারণে। তবে রান্না করার সময় গরম তেলে আগুন লাগলে কড়াইটির উপরে কোন ঢাকনা দিতে হবে। পেট্রল বা ডিজেলের মতো তেলে আগুন লাগলে পানি ব্যবহার করলে বরং বিপদ। এক্ষেত্রে আগুন যদি ছোট হয় তবে বালি , বস্তা , কাঁথার মতো ভারি কাপড় দিয়ে সেই আগুন ঢেকে দিতে হবে।

[ঝুঁকিতে কুষ্টিয়ার শতাধিক বহুতল ভবন ও শপিং মল]

এছাড়াও আধুনিক যন্ত্রপাতি যেমন ফায়ার এলার্ম অটো ফায়ার ইস্টিংগুইসার এক্সটিংগুইশার ফায়ার এলার্ম স্মোক ফায়ার বল। জ্বালানি তেলের আগুনে সবচেয়ে বেশি কাজ করে ফেনা জাতীয় পদার্থ। আধুনিক মানের দ্রুত আগুন নির্ধারণের যন্ত্রপাতি যেমন ফোম সিলিন্ডার ও সিওটু সিলিন্ডার এগুলো সবচেয়ে ভালো কাজ করে। চকবাজারের আগুন। নারায়ণগঞ্জের সেজান জুস কারখানার আগুন কেড়ে নিয়েছে শত মানুষের প্রাণ।

অগ্নি দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে – কুষ্টিয়ার শতাধিক বহুতল ডুবন ও শপিং মল এবং মার্কেটে- সচেতনতার সাথে নিজ দায়ত্বে ঘরে ঘরে শপিংমলে বহুতল ভবনে সবসময় ফায়ার এক্সটিংগুইশার রাখার পরামর্শও দিচ্ছেন, ফাদার ইনেসপেক্টর আব্দুস সালাম। যা দিয়ে সব ধরনের আগুন নেভানো যায়। কিন্তু সেটি কেনার সামর্থ্য না থাকলে এক বালতি পানি ও বালি রাখার পরামর্শ দিলেন তিনি।

বিদ্যুতের আগুন লাগলে অবশ্যই ‘ মেইন সুইচ – বন্ধ করতে হবে। আর গ্যাসের আগুনের ক্ষেত্রে গ্যাসের রাইজার বন্ধ করে সরবরাহ কেটে দিতে হবে। এছাড়াও দেশবাসী ও জে এন এস নিউজ নফ’র প্রকাশক নবীন কে ধন্যবাদ দিয়ে বলবো সোনার বাংলার মানুষদের কথা ভেবে এই সুন্দর উদ্যোগ নেওয়া।

আব্দুস সালাম আরো বলেন , এগুলো করলেই যে একশ ভাগ আগুনের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে তা নয়। তবে এতে অগ্নিকাণ্ড ও হতাহতের সংখ্যা কমে আসবে। নিউজটি প্রকাশের আগ পর্যন্ত। দমকল বাহি নী তথ্যমতে শুধুমাত্র ২০১৮ সালে অগ্নিকাণ্ডে আনুমানিক ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৩৮৬ কোটি টাকা। তাই আপনার বাসা বাডড়র অফিস – আদালতের ফায়ার এক্সটিংগুইশার গুলো যত্নসহকারে রাখবেন এবং প্রতি বছর অবশ্যই রিফিলিং করবেন। আপনার একটু সচেতনতাই পারে , আপনাকে , আপনার পরিবারকে ও সমাজকে ভয়াবহ অগ্নি দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা করে।”

এই সম্পর্কিত আরো খবর:



RELATED ARTICLES

মাদকের নিউজ করায় সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসীদের হামলা

ভয়েস অফ কুষ্টিয়া ।। গত সেপ্টেম্বর ২ তারিখে কুষ্টিয়া বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকা ও অনলাইন পত্রিকায় হরিনারায়ণপুর লক্ষণ জুট মিল এলাকা ঘিরে চলছে রমরমা মাদক...

চলন্ত ট্রাকে চুরি: কুষ্টিয়ায় চক্রের দুই সদস্য আটক

ভয়েস অফ কুষ্টিয়া ।। রবিবার (১০ অক্টোবর) রাত অনুমান ১:৪৫ ঘটিকায় কুষ্টিয়া জেলার ইবি থানাধীন মধুপুর ইটভাটা পশু হাটের সামনে পাকা রাস্তা উপর মালবাহী...

বিদেশী পিস্তল ও গুলিসহ কুষ্টিয়ায় একজন আটক

ভয়েস অফ কুষ্টিয়া ।। র‌্যাব-৬, তার প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনী, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী, মানব পাচারকারী, প্রতারকচক্র গ্রেফতার, অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ উদ্ধার এবং মাদক কারবারীদের...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

চুয়াডাঙ্গার গড়াইটুপিতে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত

এম.এ.আর.নয়ন-চুয়াডাঙ্গা ।। "বিট পুলিশিং বাড়ি বাড়ি, নিরাপদ সমাজ গড়ি" মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার পুলিশ হবে জনতার এই স্লোগানকে সামনে রেখে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নে...

দামুড়হুদায় নবাগত ইউএনও’র সাথে সাংবাদিকবৃন্দের মতবিনিময়

হেলাল উদ্দীন-দামুড়হুদা ।। চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার নবাগত উপজেলা নিবার্হী অফিসার তাসলিমা আক্তার এর সাথে জাতীয় সাংবাদিক ঐক্য ফোরাম দামুড়হুদা উপজেলা শাখার সাংবাদিকদের শুভেচ্ছা ও...

নকল চিপস তৈরির অপরাধে এক লক্ষ টাকা জরিমানা

এম.এ.আর.নয়ন-চুয়াডাঙ্গা ।। নকল ও নিম্নমানের চিপস তৈরি এবং বাজারজাত করার অপরাধে চুয়াডাঙ্গার অনন্যা ফুডসে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ভ্রাম্যমাণ অভিযান পরিচালনা করেছে। অভিযানে...

নদী ভাঙনের ৯ হাজার পরিবারকে ঘর দেবে সরকার

ভয়েস অফ কুষ্টিয়া ।। নদী ভাঙনের শিকার ৯ হাজার ৪৪৫টি পরিবারকে দুই শতাংশ জায়গাসহ পাকা ঘর করে দেবে সরকার। ইতোমধ্যে এসব গৃহহীনদের তালিকা করা...

Recent Comments

Send this to a friend